You cannot copy content of this page. This is the right with takmaa only

বিধায়ক ফিরদৌসী বেগমের উপস্থিতিতে খেয়াদহ ১ পঞ্চায়েতে দুয়ারে সরকার প্রথম দফা সম্পন্ন হল

অম্বর ভট্টাচার্য, এবিপিতকমা, সোনারপুর, ৪ঠা ডিসেম্বর ২০২০ : দুয়ারে সরকার মানে “যার যখন যেখানে দরকার, আসছে আপনার দুয়ারে সরকার”। এবার সরকারি পরিষেবা পৌঁছে যাবে আপনার দোরগোড়ায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বাংলার সমস্ত পৌর ওয়ার্ড ও গ্রাম পঞ্চায়েতে শুরু হয়েছে দুয়ারে সরকার ক্যাম্প। এই উদ্যোগের মাধ্যমে সম্ভব হবে রাজ‍্য সরকারের বিভিন্ন প্রকল্প ও পরিষেবা সংক্রান্ত সমস্যার দ্রুত সমাধান। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে “দুয়ারে সরকার” মানুষকে বেশ উৎসাহী করে তুলেছে।

দুয়ারে সরকার কর্মসূচি সফল করার লক্ষে সোনারপুর উত্তর বিধানসভা কেন্দ্রের খেয়াদহ ১ গ্ৰাম পঞ্চায়েত এলাকায় আজ প্রথম পর্যায়ের ক‍্যাম্প করা হয়েছিল খেয়াদহ গ্রাম পঞ্চায়েত অফিস প্রাঙ্গনে। উপস্থিত ছিলেন সোনারপুর উত্তর বিধানসভার বিধায়ক মাননীয়া ফেরদৌসী বেগম সাথে ছিলেন প্রধান গোরাচাঁদ নস্কর, সহদেব নস্কর, সুশিত ঘোষাল সহ পঞ্চায়েতের সকল সদস্যরা।পঞ্চায়েত এলাকার উৎসাহী মানুষের ঢল নেমেছিল। মানুষ দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে খাদ্য সাথী, স্বাস্থ্য সাথী, শিক্ষাশ্রী, কন্যাশ্রী, মানবিক, কাস্ট সার্টিফিকেট, রূপশ্রী, জয়জোহার, তপশিলী বন্ধু, ঐক্যশ্রী, আদিবাসী বার্ধক্য ভাতা আলাদা আলাদা স্টলে মানুষ নিজ নিজ ফর্ম তুলে ভর্তি করে জমা করেন।

দুয়ারে দুয়ারে সরকার প্রকল্প নিয়ে প্রধান গোরাচাঁদ নস্কর জানান, সরকারের এই উদ্যোগ ও পদ্ধতি খুবই ভাল।প্রথমে একটা লাইনে সকলকে দাঁড়াতে হচ্ছে, এরপর অনলাইনে নিজের নাম ও কি বিষয়ে সুবিধা পেতে চান সেটা জানার পর সরকারি আধিকারিকরা সেই বিষয়ের স্টলে পাঠিয়ে দিচ্ছেন। সেখানে গিয়ে সেই বিষয়ের ফর্ম নিয়ে ভর্তি করে ও উপযুক্ত নথির প্রতিলিপি দিয়ে জমা করতে হচ্ছে। যারা সেদিন জমা করতে পারছেন না তাদের পরবর্তী তারিখে জমা করতে হবে। মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যসাথী, খাদ্যসাথী, কন্যাশ্রী, মানবিক, কাস্ট সার্টিফিকেট, রূপশ্রী, জয়জোহার, তপশিলী বন্ধু, ঐক্যশ্রী, আদিবাসী বার্ধক্য ভাতা নিয়ে যথেষ্ট উত্তেজনা চোখে পড়েছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে মানুষ খুবই উপকৃত হচ্ছে। সব থেকে যেটা ভাল তা হল নিজের এলাকাতেই সুবিধা লাভ করছে, এর জন্য কোথাও যেতে হচ্ছে না বা কাউকে মারফৎ করে সুবিধা পেতে হচ্ছে না। সবটাই স্বচ্ছ। এছাড়া আমাদের বিধায়ক নিজে উপস্থিত থেকে যথেষ্ট সময় দিয়েছেন মানুষের সাথে কথা ও উপদেশ দেওয়ার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *